কালিম্পং (Kalimpong) শহরে ভ্রমণ এর বিস্তারিত …

কালিম্পং (Kalimpong) শহরে  ভ্রমণ এর বিস্তারিত …

কালিম্পং ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত। যার গড় উচ্চতা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪১০০ ফুট।দার্জিলিং গেলে সাথে একদিন সময় নিয়ে দেখে আসতে পারেন এই সুন্দর শহর।

কালিম্পং এর বিশেষ পরিচিতি হচ্ছে শহরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো। যা বেশিরভাগই ব্রিটিশ আমলের তৈরি। মনোরম জলবায়ু আর সহজগম্যতা একে জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র হিসাবে গড়ে তুলেছে।এখানে নানাপ্রকার অর্কিড দেখা যায়। এখানকার নার্সারিগুলিতে হিমালয়ের ফুল, স্ফীতকন্দ (tubers) ও রাইজোমের ফলন ফলে ।কালিম্পং এর জন্য আলাদা ভ্রমণ পরিকল্পনা খুব কমই থাকে ভ্রমণকারীদের। কারণ দার্জিলিং থেকে সকালে বের হলে সারাদিন এ কালিম্পং এর দর্শনীয় স্থানগুলো দেখে সন্ধ্যার মধ্যে আবার দার্জিলিং এ ফেরা যায়।আমি যখন কালিম্পং গিয়েছিলাম তখন দার্জিলিং থেকেই গিয়েছিলাম আমার বর্ণনাটাও সেভেবেই লিখব। আর আমার মতে কম সময়ে যদি আপনার ভ্রমণ পরিকল্পনা থাকে তাহলে দার্জিলিং থেকে যাওয়াই ভালো।

কি কি দেখবেন…?

আমরা যেহেতু দার্জিলিং থেকে যাওয়ার প্ল্যান করব তাই দেখাটা রাস্তা থেকেই শুরু করতে হবে। আপনি যদি কালিম্পং গিয়ে কিছু না দেখেও ফিরে আসেন তাও অনেক কিছু দেখবেন। আর তা হচ্ছে রাস্তার দুইপাশের দৃশ্য। যেতে যেতে দেখবেন পাইন এর বন, চা বাগান, গোর্খা ট্রেনিং স্পট, তিস্তা নদী সহ আরো অনেক কিছু। তারপরো আমরা যা দেখতে পারবো তা বলছি … যাওয়ার পথে প্রথমেই পরবে লামাহাট্টা ইকো পার্ক (Lamahatta eco-park) । এটা আসলে পাহাড়ের উপরে পাইন বনকে ঘিরে করা অসাধারন সুন্দর একটি যায়গা। ভিতরের দিকে একটা লেক আছে । প্রকৃতি যে কত সুন্দর হতে পারে না দেখলে বিশ্বাস করতে পারবেন না।আপনাকে যেহেতু সকালে দার্জিলিং থেকে বের হতে হবে তাই চেষ্টা করবেন এখানে এসে সকালের নাস্তা করার জন্য।

লামাহাট্টা পার হওয়ার পরে রাস্তায় পরবে তিস্তা ভিউ পয়েন্ট এটার আসল নাম হচ্ছে Lovers meet view point. নামটা যেমন সুন্দর যায়গার ভিউটা তেমনি সুন্দর। এক যায়গায় দারিয়ে দেখবেন তিস্তা নদী সাথে দেখবেন একপাশে সিকিম একপাশে দার্জিলিং এবং একপাশে কালিম্পং।

আমাদের পরবর্তী গন্তব্য কালিম্পং শহরের পাইন ভিউ নার্সারি, এখানে আছে ক্যাকটাসের বিশাল সংগ্রহ । একসাথে  দেখেবেন  ১৫০০ এর বেশি ধরণের ক্যাকটাস। আমি জীবনের প্রথম এখানে বিভিন্ন ধরণের ক্যাকটাস এর ফুল দেখেছিলাম।

এরপর যাবো আমরা ডেলো পার্ক এ। ডেলো হিল এর চুরায় হচ্ছে এই পার্ক, আর এটাই হচ্ছে কালিম্পং এর সবচেয়ে উচু যায়গা (৫৫৯০ ফুট)। এই পাহাড়ের উপরে আছে অসাধারন ভিউ পয়েন্ট এখান থেকে আপনি কালিম্পং শহর ও দূরের অনেক পাহাড় দেখতে পাবেন। এখানে আছে পেরাগ্লাইডিং এর ব্যবস্থাও।

এই ডেলো পার্ক এর কাছেই আছে কালিম্পং সাইন্স সেন্টার । এখানে থ্রিডি দেখার ব্যবস্থা সহ আছে বৈজ্ঞানিক অনেক কিছুর প্রদর্শনী। এই যায়গাটাও একটা পাহাড়ের চুরায় অবস্থিত। এখানে পুরো পাহাড়ের চুড়ায় আছে বিভিন্ন বৌজ্ঞানিক সুত্র প্রমানের জিনিসপত্র। বিজ্ঞানের ছাত্র যারা আছে তারা ভালো অভিজ্ঞতা লাভ করতে পারবে।

এরপর ফেরার পথে পরবে হনুমান মন্দির। এটাও একটা টিলার উপরে অবস্থিত এখানে আছে হনুমানের বিশাল মূর্তি।

এছাড়াও কালিম্পং এ দেখার যে জায়গাগুলো আছে তার মধ্যে- রবিন্দ্রনাথের গৌরিপুর হাউস, কালিম্পং আর্ট এন্ড ক্রাফট সেন্টার, সবুজ গ্রাম লোলেগাও, ক্যাথলিক চার্চ সহ ব্রিটিশ আমলের বেশ কিছু স্থাপনা। আছে রিভার রাফটিং এরও ব্যবস্থা।

কালিম্পং এ থাকা বা আলাদাভাবে যাওয়ার কোন কিছু লিখলামনা এখানে। কারণ আপনি দার্জিলিং থেকে একদিনেই উল্লিখিত সব স্পট ঘুরে আবার দার্জিলিং এ ফিরে আসতে পারবেন।

দার্জিলিং এর বিস্তারিত জানতে … ক্লিক করুন

ঢাকা- দার্জিলিং – কালিম্পং – মিরিক – ঢাকা এর ভ্রমণ পরিকল্পনা জানতে … ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *